Gallery

নাস্তিকদের নিয়ে কিছু কথা ও একটি সহজ চ্যালেজ্ঞ !

নাস্তিকরা মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লহকে ভুলে গিয়ে যা ইচ্ছা তাই করা তে বিশ্বাসী।
পূর্বেই আলোচনা করেছি,নাস্তিকদের মূল ভিত্তি বিজ্ঞান হলেও বিজ্ঞানের সাথে এই দর্শনের কোনো সম্পর্ক নেই।বর্তমানে নাস্তিকদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে,অমুসলিম-মুসলিম উভয়ের মধ্যেই।অমুসলিমদের বিষয়টা কিছুটা স্বাভাবিক হলেও মুসলিমরা নাস্তিক তথা বস্তুবাদে বিশ্বাসী হচ্ছে ভাবলেই কষ্ট লাগে।আফসোস হয়,যে মানুষ কীভাবে সত্যের পথ থেকে এভাবে সরে যাচ্ছে!

বর্তমানে মনে একটা প্রশ্ন আসেই যে,মুসলিম পরিবারের ছেলেমেয়েরা কেন নাস্তিক তথা ইসলাম বিদ্বেষী হচ্ছে? তাহলে কি হ্যামিলিনের বংশীবাদকের মতো কেউ তাদের মোহগ্রস্ত করে ইসলাম থেকে দূরে সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে?

সাধারণ মুক্তচিন্তা ও সংশয়বাদী চিন্তাধারার কারণে এমন হচ্ছে ভাবা হয়,তবে এর পিছনে আরো অনেক কারণ রয়েছে।একজন অমুসলিম সাধারণত ইসলাম বিদ্বেষীই হয়,তার সমাজ তাকে এমন ভাবতে শেখায়।তবে যখন সে নিজ ধর্মের অসারতা উপলব্ধি করে তখন তার মনে ইশ্বর সম্পর্কে এক সংশয়পূর্ণ চিন্তার বহিঃপ্রকাশ ঘটে।হয়ে গেলে সে একজন নাস্তিক,ইসলামের সুন্দর্য বোঝার সৌভাগ্যটুকুও তার হলো না।

আমার মনে হয়,একজন অমুসলিমকে মুসলিম করার চেয়ে একজন নাস্তিককে মুসলিম বানানো সহজ।তার সামনে কেবল আল্লহর অস্তিত্বের প্রমাণ করতে পারলেই হলো।”লা ইলাহা” টুকু তো সে মেনে নিয়েছে বাকিটুকুর জন্য মেহনত করতে হবে।অন্যদিকে একজন অমুসলিমের ক্ষেত্রে দুইটি ধাপ অনুসরণ করতে হয়।এদিক দিয়ে নাস্তিকরাই এগিয়ে আছে।নাস্তিকদের মুসলমান করা তুলনামূলক সহজ।

নাস্তিকতা হলো এক ধরণের মুর্খতার পরিচয়।প্রকৃতির এরূপ শৃঙ্খলা উপেক্ষা করে বিশৃঙ্খল বিশ্বজগতের মতো অবৈজ্ঞানিক তত্ত্বকে বিশ্বাস করা বোকামি ও মুর্খতার পরিচয় ছাড়া আর কিছুই নয়।

এখন মুসলমানদের মধ্যে নাস্তিকতার প্রসার সম্পর্কে কিছু বলিঃ
[১] ঈশ্বরকে না মানার এক দম্ভ,মনের মধ্যে এক অংকারবোধ থেকে ঈশ্বরকে না মানার সূত্রপাত।
[২] অশ্লীলতা প্রীতি,যেমন একটু বিস্তারিত বলি।ধরুণ একজন ছেলে নাস্তিক মনস্থির করেছে সে একজন মেয়ের সাথে ডেটিং,ব্যভিচার ইত্যাদি করবে,কিন্তু ইসলাম তাকে বাধা দেয়;সে মদ খাবে কিন্তু ইসলাম তাকে বাধা দেয়।তাদের প্রশ্ন কেন তারা এরূপ করতে পারবে নাহ? এই ধরণের চিন্তা নাস্তিক বৃদ্ধির কারণ।
[৩] খ্যাতির লোভ ও পশ্চিমা প্রীতি ঘেষা আরেকটি কারণ।এর উদাহরণস্বরূপ তসলিমা নাসরিন কিংবা সালমান রুশদীর দিকে তাকালেই বোঝা যায়।
[৪] মুসলিম ঘরের ছেলেমেয়ে ইসলাম থেকে দূরে সরে যাচ্ছে।তাদের মধ্যে দ্বীনের প্রতি কম জ্ঞান থাকা এর অন্যতম কারণ।
[৫] মিডিয়া ও সামাজিক সাইডগুলো আজ নাস্তিকতার পিছনে ভূমিকা রাখছে।মিডিয়া,ফেসবুক,ব্লগগুলোতে ইসলাম বিরোধী অপপ্রচারণা এর একটি কারণ।
♪♪সর্বশেষে যে কারণটা আছে তা হলো শয়তানের প্রভাব।শয়তান আমাদের চারিদিক দিয়ে আক্রমণ করে।ড.খন্ডকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর স্যারের একটা কথা বারবার মনে পড়ে যে,”শয়তান তো মরে না।”♪♪

তাই এটাই বলতে চাই,সৃষ্টিকর্তা তথা আল্লহর উপর ঈমান আনুন এবং শান্তির পথে চলুন।ইসলামই একমাত্র শান্তির পথ।

%%বিশ্বের সকল নাস্তিক এবং বড় বড় বিজ্ঞানীদের জন্য একটি সহজ চ্যালেজ্ঞ।মহাবিশ্ব যদি ‘এমনি এমনি’ই হয়ে থাকে তাহলে একটা ছোট্ট কাজ করুন।আপনার সর্বাধুনিক প্রযুক্তি,জ্ঞান,বিদ্যাবুদ্ধি দিয়ে “অস্তিত্বহীনতা থেকে একটি মাছিকে অস্তিত্ব এনে দিন তো।আচ্ছা আরো সহজ করে দিচ্ছি, “মরা মাছি” হলেও চলবে।%%

“” আর যদি না পারেন তাহলে ভয় করুন সেই জাহান্নামকে যেখানে জ্বালানি হবে মানুষ।””

https://bn.wikipedia.org/wiki/%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B0_%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A6%BE

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s