Gallery

উপমহাদেশে সাম্প্রদায়িকতার একটি ছোট্ট উদাহরণ

images

অনেক হিন্দুরা আছেন,যারা মুসলমানদের সাম্প্রদায়িক জনগোষ্ঠী হিসেবে আখ্যা দেন।

কিন্তু চলুন আমরা একটু ইতিহাস দেখে আসি।

সাম্প্রদায়িকতা হচ্ছে এক ধরনের মনোভাব। কোন ব্যক্তির মনোভাবকে তখনই সাম্প্রদায়িক বলে আখ্যা দেওয়া হয় যখন সে এক বিশেষ ধর্মীয় সম্প্রদায়ভুক্তির ভিত্তিতে অন্য এক ধর্মীয় সম্প্রদায় এবং তার অন্তর্ভুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধচারণ এবং ক্ষতিসাধন করতে প্রস্তুত থাকে।যা ইসলামের শিক্ষার বাইরে।

—আমরা জানি একসময় ভারতীয় উপমহাদেশে বৌদ্ধরাও ছিল।খৃষ্টপূর্ব প্রায় ৩০০ বছর পূর্বে সম্রাট অশোকের বৌদ্ধধর্ম গ্রহণ করায় এবং বৌদ্ধ ধর্ম ভারতের রাজধর্ম ঘোষণা করায় হিন্দুধর্মের বিকাশ বাধাগ্রস্থ হচ্ছিল।ফলে হিন্দু ও বৌদ্ধ ও হিন্দুধর্মের সংঘাত বাধে এবং সে “সাম্প্রদায়িক” সংঘাতে হিন্দুরা বৌদ্ধদের ভারতবর্ষের বাইরে পাঠিয়ে দেয়।ফলে বৌদ্ধরা অবস্থান নেয় সিংহলে(বর্তমান শ্রীলংকা), ব্রক্ষদেশে এবং জাপানের দিকে।

♪♪ “শ্রী বিনয় ঘোষ” তার “ভারতজনের ইতিহাস” বইয়ের ১০০ পৃষ্ঠায় বলেছেন, “হিন্দুধর্মের কাছে নতি স্বীকার করিয়া,তাহাকে নিজের শ্রেষ্ঠ নীতি ও গুণাবলি দান করিয়া বৌদ্ধ ধর্ম ভারতবর্ষ হইতে বিদায় লইয়াছে।” ♪♪

—-এজন্য আমাদের দেশে বৌদ্ধদের মহাস্থান গড় আছে,আছে সোমপুর বিহার,আছে ময়নামতি বৌদ্ধ বিহার; কিন্তু নাই কেবল বৌদ্ধ জনগোষ্ঠী।
——অন্যদিকে মুসলমানরা প্রায় ৭০০ বছর উপমহাদেশ শাসন করেছে কিন্তু হিন্দুদের কিন্তু উপমহাদেশ ত্যাগ করতে হয়নি।বরং মুসলমানরা ভারতবর্ষে সংখ্যালঘু,এটাই কি ইতিহাসে কারা সাম্প্রদায়িক ছিল প্রমাণ করে না???

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s